youtube_marketing_p1

ইউটিউবে মার্কেটিং এর কয়েকটি কার্যকরী পন্থা

যদি প্রশ্ন করা হয় যে ইন্টারনেট এর দুনিয়ায় প্রচুর পরিমাণ মানুষ কোথায় কোথায় বিচরণ করেন, তাহলে ফেসবুকের পরেই যে ওয়েবসাইটটির নাম আসবে তা হলো – ইউটিউব।
সারামাসে প্রায় ২০০ কোটি একটিভ ইউজার নিয়মিত ব্যবহার করে চলেছেন এই ওয়েবসাইটটি। কারণ এখানে নিজের পছন্দ, রুচি ও চাহিদা অনুযায়ী প্রায় সব ধরণের কনটেন্ট বা ভিডিওই মানুষ দেখতে পারে।
বাংলাদেশের প্রচুর মানুষ ইউটিউব ব্যবহার করে চলেছেন প্রতিনিয়ত। শিশু থেকে শুরু করে তরুণ-তরুণী, মধ্যবয়স্ক, বৃদ্ধ – সবার জন্যই প্রচুর ভিডিও বিদ্যমান রয়েছে ইউটিউবে।
তাই আপনার ব্যবসার প্রসারে ও প্রচারে ইউটিউব হতে পারে একটি কার্যকরী হাতিয়ার। কিভাবে ইউটিউবে মার্কেটিং করা যায় – তা আজকের এই পোস্টে আলোচনা করা যাক।
১। আপনার ইউটিউব ভিডিওগুলোর SEO এর প্রতি নজর রাখুন।
যখন ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করবেন, তা সঠিকভাবে এসইও(সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন) করার প্রতি মনোযোগী থাকুন। প্রত্যেকটি ভিডিও সঠিকভাবে এসইও করতে পারলে আপনি আরো বেশি মানুষের কাছে পৌঁছাতে পারবেন বেশ সহজেই এবং ভিজিটর ও ভিউ দুটোই বেশি পাবেন। ভিডিও আপলোড এবং প্রস্তুতির সময়ের আপনার এইদিকের মনোযোগ, আপনাকে একটি ভালো ফলাফল এনে দেবে অবশ্যই।
২। এমন ভিডিও তৈরি করুন, যা ভিউয়াররা দেখে আনন্দিত বা উপকৃত হবে।
ইউটিউবে রয়েছে কোটি কোটি ভিডিও, তাই আপনাকেও এর মাঝে নিজের চ্যানেলকে ফুটিয়ে তুলতে হবে আলাদা, ভিন্ন-ধর্মী ও আকর্ষণীয় ভিডিও এর মাধ্যমে। আপনার ভিডিওগুলোর কনটেন্ট এবং প্রেজেন্টেশন একটু উন্নতমানের রাখার চেষ্টা করবেন। ভালো সাউন্ড কুয়ালিটি এবং আলোর ব্যবস্থা, সাথে ভালো মানের কনটেন্ট – আপনার চ্যানেলকে একটা ভালো জায়গায় পৌঁছে দিতে সাহায্য করবে। এমন ভিডিও বানান, যেন আপনার টার্গেট অডিয়েন্স আপনার ভিডিওগুলো দেখে আনন্দিত বা উপকৃত হয়।
৩। ভিডিওগুলোতে আকর্ষণীয় থাম্বনেল ও টাইটেল ব্যবহার করুন।
ইউটিউবে মানুষের কাছে আপনার ভিডিওগুলো ভালভাবে উপস্থাপন করতে ২টা জিনিসের কোন বিকল্প নেই, আর সেগুলো হলো ভিডিওর জন্য আকর্ষণীয় থাম্বনেল ও টাইটেল। আপনার ভিডিওগুলোতে যেন বেশি বেশি ক্লিক আসে এবং বেশি ভিউ হয় এই জন্য ভিডিওর থাম্বনেল ও টাইটেলকে আকর্ষণীয় করে তৈরি করুন। সঠিক কিওয়ার্ড, সুন্দর ব্যাকগ্রাউন্ড, ইমেজ ব্যবহার করলে আপনি এগুলো ভালোভাবে রিপ্রেজেন্ট করতে পারবেন এবং মানুষও আপনার ভিডিওগুলোতে বেশি বেশি ক্লিক করতে উদ্বুদ্ধ হবে।
৪। রুটিনমাফিক ও নিয়মিত ভিত্তিতে ভিডিও আপলোড করতে থাকুন।
ইউটিউবে আপনি শুরুতেই অনেক ভিউ, দর্শক বা সাবস্ক্রাইবার পাবেন নাহ। আপনাকে ইউটিউবে একটা শক্ত ভিত্তি গড়ে তুলতে হলে নিয়মিত রুটিনমাফিক ভালো মানের ভিডিও আপলোড করে যেতে হবে। সেটা হতে পারে সপ্তাহে ১টা বা ৩টা অথবা মাসে ২/৮ টা, যা আপনার পক্ষে সম্ভব। এভাবে নিয়মিত রুটিনমাফিক ভালো মানের ভিডিও দিয়ে গেলে এবং আপনার ভিডিওতে মানুষের এঙ্গেজমেন্ট ভালো থাকলে, ইউটিউব এর অ্যালগরিদম নিজেই আপনাকে আস্তে আস্তে প্রোমোট করা শুরু করবে। তাই ইউটিউবে ভালো করতে হলে, রুটিনমাফিক ভিডিও আপলোড করা জরুরী।
এখানে ইউটিউব মার্কেটিং এর কয়েকটি পন্থা ও টিপস আজকে আলোচনা করা হলো। আপনাদের সামনে আরো মার্কেটিং এর উপায় নিয়ে আবারো আলোচনা করা হবে। আপনার মন্তব্য নিচে আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *