অনলাইন বিজনেস শুরু করতে চাচ্ছি – কিন্তু কিভাবে আগাবো বুঝতে পারছি না। কি করা যায়?

অনলাইন বিজনেস শুরু করতে চাচ্ছি – কিন্তু কিভাবে আগাবো বুঝতে পারছি না। কি করা যায়?

এক্ষেত্রে আপনাকে একটি যথাযথ প্ল্যানিং নিয়ে সামনে আগাতে হবে। আমরা আপনাদের কে Penta Q প্ল্যানিং মডেলের সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে চাই। এইগুলো নিয়ে সময় নিয়ে ভাবুন, গভীরভাবে চিন্তা করুন, খাতা কলমে লেখালেখি করুন – তাহলে মোটামুটি একটা শক্ত প্ল্যান দাঁড়িয়ে যাবেই।
Penta Q প্ল্যানিং মডেল –
১। আমি কি বিক্রি করবো?
ব্যবসায়ী হিসেবে আপনাকে কোনো প্রোডাক্ট বা সার্ভিস বিক্রি করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনাকে চিন্তা করতে হবে এমন কি প্রোডাক্ট বা সার্ভিস আপনি বিক্রি করবেন যা থেকে ক্রেতা যেমন উপকৃত হবে, তেমনি আপনারও দিনশেষে লাভ থাকবে। কোন জায়গায় কম্পিটিশন কম? কোথায় কিছু একটা ইউনিক দিয়ে আপনি আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিসটিকে অনেক আকর্ষণীয় আকারে উপস্থাপন করতে পারেন?
২। কে এই পণ্য টি কিনবে?
আপনাকে এর পরে ভাবতে হবে আপনি যে প্রোডাক্ট বা সার্ভিস আনবেন, তার ক্রেতা হবে কারা। কারা এই প্রোডাক্ট বা সার্ভিস কিনে সবচেয়ে বেশি উপকার পাবেন। তাদের বয়স কেমন, তাদের জেন্ডার কি, তাদের আর্থিক সক্ষমতা কেমন, তারা কোথায় বসবাস করেন। এইগুলো নিয়ে আপনাকে ভাবতে হবে এবং সেই অনুযায়ী আপনার ব্যবসাকে সাজাতে হবে।
৩। সে কেন কিনবে?
এর পরের প্ল্যানিং এর বিষয় সেই শ্রেণির ক্রেতাগণ আমার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস কেন কিনবে। তাদেরকে আমি কি কি ভালু ও বেনিফিট দিচ্ছি যেন সে আমার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস এর প্রতি বিশেষভাবে আকৃষ্ট হবে। Pain, Gain, Fear, Greed এই প্রবণতাগুলোকে কাজে লাগিয়ে আমার প্রোডাক্ট বা সার্ভিসকে তাদের সামনে উপস্থাপন করতে হবে।
৪। সে কেন আবার আমার প্রোডাক্টটি কিনবে?
ক্রেতা আমার পণ্য কেবল একবার কিনবে আর কিনবে নাহ – এমন টি হতে পারে না। একটা টেকসই বিজনেস দাঁড় করাতে হলে আমাদেরকে কাস্টমারকে এমন সুযোগ, সুবিধা, বেনিফিট ও সেবা দিতে হবে যেন সে বার বার আমার বিজনেসের কাছে ফিরে আসে – বার বার আমার কাছ থেকে প্রোডাক্ট বা সার্ভিস গ্রহণ করে। এমনভাবে আমার অফার ও বেনেফিটগুলোকে সাজাতে হবে যেন আমার বেশিরভাগ কাস্টমার লয়াল কাস্টমারে পরিণত হন।
৫। সে কেন আমার বিজনেসকে অন্যদের কাছে রেফার করবে?
ক্রেতা যখন আমার বিজনেস থেকে প্রোডাক্ট বা সার্ভিস গ্রহণ করবেন, তাকে এমনভাবে সন্তুষ্ট করতে হবে আমাদের যেন তিনি আমাদের লয়াল কাস্টমারে পরিণত হন। কাস্টমারকে এমন সুযোগ, সুবিধা, বেনিফিট ও সেবা দিতে হবে, যেন তিনি আমাদের বিজনেসের সুনাম তার অন্য বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়স্বজন কেও বলেন। কারণ এইভাবেই আমরা আরো দ্রুত কাস্টমার পাবো এবং এক্ষেত্রে মার্কেটিং কস্টও অনেক কমে আসবে।
এভাবেই Penta Q প্ল্যানিং মডেলের সাহায্যে আমরা আমাদের অনলাইন বিজনেসের জন্য একটি শক্ত ও মজবুত প্ল্যানিং দাঁড় করাতে পারি। এভাবে প্ল্যানিং করলে বিজনেসের সফলতার সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যাবে

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *